আবার ২৩ নাটকে মেহজাবিন

দুই ঈদের পর ভালোবাসা দিবসকে কেন্দ্র করে ঢাকাই নাট্যপাড়ায় সবচেয়ে বেশি নাটক নির্মাণ হয়। বছরের শুরু থেকেই অভিনয় শিল্পী, পরিচালক ও কলাকুশলীদের মধ্যে সে তৎপরতা চোখে পড়েছে। এবার বিশেষ এ দিনটিকে ঘিরে টেলিভিশন ও অনলাইন পস্নাটফর্মে প্রায় দেড় শতাধিক নাটক প্রচারিত হবে।

এর মধ্যে সর্বাধিক নাটকে দেখা যাবে ছোট পর্দার দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী মেহজাবিন চৌধুরীকে। ইতোমধ্যে ২৩টি নাটকের কাজ সম্পন্ন করেছেন এ লাক্স তারকা। যার সবগুলোই প্রচারিত হবে ১৪ তারিখ বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে। ইতোমধ্যেই নাটকগুলোর প্রমো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে।

এর মধ্যে ‘প্রতিদিন’, ‘এ মন আমার ও ‘ঘরে ফেরা’ শিরোনামের ৩টি নাটকের জন্য প্রশংসায় ভাসছেন এ অভিনেত্রী। বর্তমানে অবস্থা এমন যে, অভিনেতা যেই থাকুক, অভিনেত্রী হিসেবে মেহজাবিনকে চাই চাই। ফলে এ অভিনেত্রীকে কখনো আফরান নিশোর সঙ্গে আবার কখনো অপূর্বর সঙ্গে দেখা যায়। এবারের ভালোবাসা দিবসে এর প্রতিফলনও ঘটেছে।আরফান নিশোর বারোটি নাটকের বিপরীতে আটটি নাটকেই আছেন মেহজাবিন চৌধুরী।

এছাড়াও মেহজাবিনের বিপরীতে আফরান নিশোকে দেখা যাবে মিজানুর রহমান আরিয়ানের পরিচালনায় ‘গজদন্তিণী’, সঞ্জয় সমাদ্দারের পরিচালনায় ‘শিফ্‌ট’ অরুনজেবের পরিচালনায় ‘সিগনেচার’, কাজল আরেফিন অমির পরিচালনায় ‘স্যার আই লাভ ইউ’, মাহমুদুর রহমান হিমির পরিচালনায় ‘মেমোরিস’, এল আর সোহেলের পরিচালনায় ‘দৃষ্টি’, মুহিদুল মহিমের পরিচালনায় ‘ফটো ফ্রেম’ ও ‘হৃদয় ভাঙা ঢেউ’ নাটকে।

ভালোবাসা দিবসকে সামনে রেখে মেহজাবিন জুটি বেঁধেছেন অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্বের সঙ্গেও। এ জুটিকে দেখা যাবে সাগর জাহানের পরিচালনায় ‘ফিরে এসো রুবি’, মিজানুর রহমান আরিয়ানের পরিচালনায় ‘চারুর বিয়ে’, বি ইউ শুভর পরিচালনায় ‘ব্রেকআপ এজেন্সি’ ও ‘অবাক প্রেম’, সঞ্জয় সমাদ্দারের পরিচালনায় ‘অপরূপা’, মাহমুদুর রহমান হিমির পরিচালনায় ‘রুদ্র আসবে বলে’, অনন্য ইমনের পরিচালনায় ‘সি লাভস মি’, মুহিদুল মহিমের পরিচালনায় ‘সুমি আর সাথে তুমি’ ও ‘ফ্যাশান’ নাটকে।

এর বাইরে তৌসিফ মাহবুবের বিপরীতে ‘রেহনুমা’, ‘নেই তুমি’ ও ‘কেনো’ শিরোনামের ৩টি নাটকে দেখা যাবে মেহজাবিনকে। নাটক ৩টি পরিচালনা করেছেন ভিকি জাহেদ, মোহন আহমেদ ও মাহমুদুর রহমান হিমি।

ছোট পর্দায় মেহজাবিনের এমন একক আধিপত্যকে কেউ কেউ ভিন্ন চোখেও ব্যাখ্যা করে থাকেন। অনেকের মতেই মেহজাবিনের এমন আধিপত্য বিশেষ সিন্ডিকেটের প্রতিফলন।

এতদিন ধারণা করা হতো, মেহজাবিন-অপূর্ব, আর তানজিন তিশা-আফরান নিশোর সফলতার পিছনে অদৃশ্য সিন্ডিকেট কাজ করছে। তবে এবার সে ধারণা পাল্টে দিয়ে সবাইকে ছাড়িয়ে গেছেন মেহজাবিন চৌধুরী। বিভিন্ন রকম সকমের চরিত্রে নিজেকে সাবলীলভাবেই উপস্থাপন করছেন তিনি।

ফলে দর্শকের পাশাপাশি মিনি পর্দার পরিচালকদের কাছেও তিনি অপরিহার্য হয়ে উঠেছেন। বিশেষ করে সমসাময়িক অভিনেত্রীদের যেখানে চার থেকে পাঁচটি নাটকে অভিনয় করতেই হিমশিম খেতে হচ্ছে, সেখানে মেহজাবিন এবার প্রায় দুই ডজন নাটকে কাজ করেছেন।

বিগত কয়েক বছর ধরেই মেহজাবিন ছোট পর্দায় নিজের অবস্থানকে বেশ শক্তপোক্ত করেছেন। গত ঈদেও একাধিক নাটকের জন্য প্রশংসিত হয়েছেন। তার মধ্যে ‘পতঙ্গ’ ও ‘হাউজফুল’ নাটকে অভিনয়ের জন্য দেশব্যাপী আলোচিত হয়েছেন। এছাড়া তার ‘বড় ছেলে’ নাটক নিয়ে মাতামাতি ছিল চোখে পড়ার মতোই। এক দশকের ক্যারিয়ারে এটিই তার সোনালি সময় বলে নিজেও স্বীকার করেছেন বহুবার।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*