করোনায় বিপাকে প্রবাসীরা ছুটছেন আইইডিসিআরে

বৃহস্পতিবার আইইডিসিআরের সামনে দূতাবাসের চিঠি হাতে এক কুয়েতপ্রবাসী -যাযাদি

প্রায় ১৫ বছর থেকে কুয়েতে থাকেন প্রবাসী সবুর খান। তিন মাসের ছুটিতে তিনি এসেছিলেন দেশে। তার আগামী ৮ মার্চ কুয়েত যাওয়ার কথা। বিমানের টিকিটও কেটেছেন। কিন্তু গত পরশু মোবাইলে এসএমএস এসেছেন কুয়েত যাওয়ার আগে নভেল করোনাভাইরাস আছে কি না তার ছাড়পত্র লাগবে। এতেই বিপাকে পড়েছে এ প্রবাসী।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে কুয়েতগামী প্রবাসীরা ভিড় করেছেন রাজধানীর মহাখালীর ‘বাংলাদেশের জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান-আইইডিসিআর’ এর সামনে। কারণ বাংলাদেশে কারও শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি রয়েছে কি না সে বিষয়ে নমুনা পরীক্ষা করে প্রতিষ্ঠানটি।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, শত শত মানুষ আইইডিসিআরের সামনে অপেক্ষা করছে। তারা সবাই কুয়েত প্রবাসী। বিভিন্ন সময়ে দেশে এসেছেন ছুটিতে। কুয়েত সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী এখন থেকে ওই দেশে কোনো বাংলাদেশি যেতে হলে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি রয়েছে কি না তার ছাড়পত্র লাগবে। এ ছাড়পত্র নিতেই আইইডিসিআরে ভিড় করেছেন প্রবাসীরা।

আইইডিসিআরের সামনে অপেক্ষমান মো. হারিস নামের এক প্রবাসী জানান, ২ জানুয়ারি ছুটিতে দেশে এসেছিলাম। আগামী শনিবার আমি কুয়েত যাব বলে টিকিট কেটেছি। এখন কুয়েত দূতাবাস একটি ফরম ধরিয়ে দিয়ে বলছে যেতে হলে করোনাভাইরাসের ছাড়পত্র লাগবে। আইইডিসিআর কথা বলেছে। কিন্তু এখানকার লোকজন বলছে তারা করে না। কারও সঙ্গে কথাও বলতে পারছি না।

কুয়েত দূতাবাসসহ বিভিন্ন দূতাবাস থেকে পরীক্ষার জন্য আইইডিসিআরে পাঠানো হলেও প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদি সাবরিনা ফ্লোরা বলেন, কারও উপসর্গ না থাকলে করোনা শনাক্ত হবে না। দূতাবাসগুলো আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ না করে পাঠাচ্ছে। আমরা রোগ শনাক্ত করলেও সার্টিফিকেট প্রদান করি না।

এর আগে মঙ্গলবার (৩ মার্চ)

কুয়েতের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ এক বিবৃতিতে জানিয়েছে প্রাণঘাতী নভেল করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে বাংলাদেশসহ ১০ দেশের নাগরিকদের কুয়েত প্রবেশের ক্ষেত্রে কড়াকড়ি আরোপ করেছে দেশটির সরকার। ৮ মার্চ থেকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে বলে জানা গেছে।

এই ১০ দেশের নাগরিকরা কুয়েত দূতাবাসের দেওয়া সনদ দেখাতে পারলে কেবল তাদের দেশটিতে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে। সেই সনদে লেখা থাকবে ‘ওই যাত্রী করোনাভাইরাস থেকে মুক্ত’।

বাংলাদেশ, ফিলিপাইন, ভারত, মিসর, সিরিয়া, আজারবাইজান, তুরস্ক, শ্রীলঙ্কা, জর্জিয়া ও লেবাননের নাগরিকদের, পলিমারেজ চেইন রিঅ্যাকশন বা পিসিআর নামক মেডিকেল টেস্ট সম্পন্ন করার মাধ্যমে, করোনাভাইরাসমুক্ত নিশ্চিত করে, তারপর কুয়েতে প্রবেশ করতে হবে।

বুধবার (৪ মার্চ) কুয়েতের বেসামরিক বিমান চলাচল এক টুইট বার্তায় জানিয়েছে, এ স্বাস্থ্য সনদ অবশ্যই কুয়েত দূতাবাস থেকে অনুমোদিত হতে হবে। উলিস্নখিত দেশের মধ্যে যেসব দেশে কুয়েতের দূতাবাস নেই, সেসব দেশের স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান থেকে প্রত্যায়িত সনদ থাকতে হবে। অন্যথায় নাগরিককে ফেরত পাঠানো হবে।

এদিকে চীনে নতুন করে আরও ১৩৯ জন নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। চীনের মূল ভূখন্ডে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৮০ হাজার ৪৩০ এবং মৃতু্য হয়েছে ৩ হাজার ১২ জনের। চীনের বাইরে সবচেয়ে বেশি আক্রান্তের সংখ্যা দক্ষিণ কোরিয়ায় এবং সবচেয়ে বেশি মৃতু্যর ঘটনা ঘটেছে ইতালিতে।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এখন পর্যন্ত ৩ হাজার ২৮৫ জনের প্রাণ কেড়েছে করোনাভাইরাস। বিভিন্ন দেশে ৯৫ হাজার ৪৮১ জন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এছাড়া চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ৫৩ হাজার ৬৮৮ জন।

Collected form: jaijaidin

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*